পাবনায় তদন্ত কর্মকর্তার সামনেই প্রধান শিক্ষককে পেটালো যুবলীগ নেতা

পাবনা প্রতিনিধিঃ পাবনার সাঁথিয়ায় তদন্ত কর্মকর্তার সামনেই যুবলীগ নেতার হাতে প্রধান শিক্ষককে মারপিট ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বিঞ্চুপুর মনিরুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ে।

অভিযোগে জানা যায়, সাঁথিয়া উপজেলার ক্ষেতুপাড়া ইউনিয়নের বিঞ্চুপুর মনিরুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনী তফশীল ঘোষণা করা হয়। সে মোতাবেক ১৩জুন/১৭ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে ১১জন অভিভাবক সদস্য নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছিল। সেই মুহুর্তে উপজেলা যুবলীগ নেতা বিঞ্চুপুর গ্রামের শফিকুল ইসলাম শফি নির্বাচন পিছানোসহ অনিয়মের অভিযোগ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট একটি আবেদন দেন।

অপরদিকে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, শিক্ষক ও অভিভাবক সদস্য প্রার্থীসহ এলাকাবাসীগণ শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য আরেকটি আবেদন করেন। অভিযোগ দুটি আমলে নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে তদন্তের নির্দেশ দেন। এর প্রেক্ষিতে গতকাল রোববার বিকেলে শিক্ষা কর্মকর্তা আমির হোসেন অত্র বিদ্যালয়ে তদন্তের জন্য যান। তদন্তের শেষ পর্যায়ে প্রধান শিক্ষক কথা বলার সময় তদন্ত কর্মকর্তার সামনেই যুবলীগ নেতা শফিকুল ইসলাম শফি প্রধান শিক্ষককে কিল ঘুষি মারতে শুরু করেন।পরে ধারলো অস্ত্র দিয়ে প্রধান শিক্ষককে কোপ দেন। জানা যায় ধারালো অস্ত্রে কভার থাকায় তিনি বেচে যান।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আ. রাজ্জাক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে পাবনা বার্তা ২৪ ডটকমকে জানান, শফিকুল ইসলাম নিজে সভাপতি হওয়ার জন্য আমাকে চাপ দিয়ে নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র করে আসছিল। এরই জেরে তদন্ত কর্মকর্তার সামনে আমাকে কিলঘুষিসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ দেয়।

একজন তদন্ত কর্মকর্তার উপস্থিতিতে প্রধান শিক্ষককে এভাবে শাররীকভাবে লাঞ্চিত করার ঘটনাটির তীব্র নিন্দা জানিয়ে দ্রুত তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী করেন অত্র বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি।

এ বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমির হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে  বলেন, এ ব্যাপারে নির্বাচন সংক্রান্ত তদন্ত প্রতিবদেন ও শিক্ষকে শারিরীকভাবেলাঞ্চিত হওয়ার বিষয়ে ইউএনও মহোদ্বয়ের নিকট লিখিত রিপোটর্ পেশ করা হবে।

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক আঃ রাজ্জাক বাদী হয়ে রোববার রাতে সাঁথিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সাঁথিয়া থানা অফিসার্স ইনচার্জ হাসান ইনাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো।

আপনার মন্তব্য দিন

আপনার ই-মেইল এড্রেস প্রকাশ হবে না। Required fields are marked *