বনানীতে ২ ছাত্রী ধর্ষণ মামলার শুনানী ১৯ জুন

এসএম নিউজ ডেস্কঃ   রাজধানীর বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী ধর্ষণের মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণসংক্রান্ত শুনানির জন্য ১৯ জুন তারিখ ধার্য করেছেন আদালত। সোমবার ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২-এর বিচারক শফিউল আজম এ দিন ঠিক করেন। আদালত সূত্র বলছে, শুনানির দিন আসামিদের আদালতে হাজির করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গতকাল রোববার এ মামলার নথি ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত থেকে ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। ৮ জুন এ মামলায় অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। অভিযোগপত্রে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে শাফাত আহমেদ ও তাঁর বন্ধু নাঈম আশরাফ ওরফে আবদুল হালিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ছাড়া শাফাতের বন্ধু সাদমান সাকিফ, গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন ও তাঁর দেহরক্ষী রহমত আলীর বিরুদ্ধে ধর্ষণে সহায়তার অভিযোগ আনা হয়েছে।

মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়, জন্মদিনের পার্টির কথা বলে গত ২৮ মার্চ রাতে বনানীর রেইনট্রি হোটেলে ডেকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া দুই তরুণীকে ধর্ষণ করেন শাফাত ও তাঁর বন্ধু নাঈম আশরাফ।

ঘটনার ৪০ দিন পর দুই তরুণী বনানী থানায় মামলা করতে গেলে মামলা না নিয়ে তাঁদের হয়রানি করে পুলিশ। এ ঘটনা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে হইচই পড়ে যায়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়। এরপর পুলিশ মামলা নিলেও আসামি গ্রেপ্তারে গড়িমসি শুরু করে। বনানী থানার ওসি ফরমান আলী আসামিপক্ষের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়েছেন বলেও অভিযোগ আসে সংবাদমাধ্যমে। পরে পুলিশের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ধর্ষণের ঘটনায় মামলা নিতে, ধর্ষণের শিকার দুই তরুণীর সঙ্গে আচরণে এবং আসামিদের গ্রেপ্তারে থানা-পুলিশের গাফিলতি নয়, ‘ব্যত্যয়’ ছিল।

এদিকে থানায় মামলা হওয়ার পাঁচ দিন পর গত ১১ মে সিলেট থেকে শাফাত ও সাদমানকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর ১৫ মে শাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল ও দেহরক্ষী রহমত ঢাকায় গ্রেপ্তার হন। সবশেষে ১৭ মে মুন্সিগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করা হয় নাঈম আশরাফকে, যিনি সেখানে এক আত্মীয়ের বাড়িতে লুকিয়ে ছিলেন। এই পাঁচজনের মধ্যে গাড়িচালক বিল্লাল ছাড়া বাকি চার আসামিই নিজেদের দায় স্বীকার করে আদালতের হাকিমের কাছে জবানবন্দি দেন। তবে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসকেরা মেডিকেল পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত না পাওয়ার কথা জানান।

আপনার মন্তব্য দিন

আপনার ই-মেইল এড্রেস প্রকাশ হবে না। Required fields are marked *