সাংবাদিক সমাবেশ থেকে অর্থমন্ত্রীর অপসারণ দাবি, ক্ষমা চাইতে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

সাংবাদিকদের নিয়ে অপ্রীতিকর মন্তব্য করায় অর্থমন্ত্রীকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সভাপতি শাবান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, অর্থমন্ত্রী যদি ৭২ ঘণ্টার মধ্যে নিঃশর্ত ক্ষমা না চান এবং ১৫ আগস্টের মধ্যে সাংবাদিকদের নবম ওয়েজবোর্ডের ঘোষণা না দেন তাহলে ১৬ আগস্ট থেকে কঠোর কর্মসূচিতে যাবে সাংবাদিকরা।

শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অর্থমন্ত্রীকে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা ও নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের দাবিতে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতির ভাষণে তিনি এই দাবি জানান।

শাবান মাহমুদ বলেন, যদি ৭২ ঘণ্টার মধ্যে অর্থমন্ত্রী ক্ষমা না চান ও নবম ওয়েজবোর্ডের ঘোষণা না দেন তাহলে ১৬ আগস্ট জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ২ ঘণ্টার অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে সাংবাদিকরা। ১ ঘণ্টা সমাবেশ। পরের ১ ঘণ্টা প্রেস ক্লাবের সামনের সড়কে অবস্থান নিয়ে পুরো ঢাকা অচল করে দেওয়া হবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব ওমর ফারুক বলেন, অর্থমন্ত্রীর বেসামাল বক্তব্যের কারণে সরকারের ভাবমর্যাদা হচ্ছে। আমরা অর্থমন্ত্রীর অপসারণের দাবি জানাই। তথ্যমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছিলেন। এখন তিনি নতুন করে ষড়যন্ত্র করছেন কি না তা খতিয়ে দেখতে হবে।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা বলেন, অর্থমন্ত্রী নিজেই একজন রাবিশ। এত দিন তিনি বিভিন্ন পেশার মানুষদের তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করেছেন এবার সাংবাদিকদের নিয়ে করলেন। এমন মন্ত্রী আমরা চাই না। আমরা তার অপসারণের দাবি জানাই।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ বলেন, যে মন্ত্রী সাংবাদিকদের বেতনের কাঠামো জানেন না, তার অন্তত অর্থমন্ত্রী পদে থাকার অধিকার নেই। আমরা কঠোর কর্মসূচি দিতে চাই না। আপনি যদি ক্ষমা না চান তাহলে আপনার বিরুদ্ধে থুথু নিক্ষেপের কর্মসূচি দেওয়া হবে।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ)-এর সাধারণ সম্পাদক মোরসালীন নোমানী অবিলম্বে অর্থমন্ত্রীর ন্যক্কারজনক বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান।

প্রতিবাদ সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম মহাসচিব অমিয় ঘটক পুলক, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি আতিকুর রহমান, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ জামাল প্রমুখ।

আপনার মন্তব্য দিন

আপনার ই-মেইল এড্রেস প্রকাশ হবে না। Required fields are marked *